সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

99507452-25dd-45a7-80e3-68abd0e4c519.jpg

মনস্তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা স্বপ্নের সাতকাহন

স্বপ্ন কি সবাই আমরা জানি, তবে স্বপ্নের যে সংজ্ঞাটি সর্বজন গ্রাহ্য তা হচ্ছে, “ঘুমন্ত অবস্থায় সচেতন অনুভূতির অভিজ্ঞতার নাম স্বপ্ন”।

মানুষ বেঁচে থাকে তার স্বপ্নের মাঝে এবং সে স্বপ্ন যা তাকে ঘুমাতে দেয়না। আমার এই লেখাটা ওই স্বপ্ন নিয়ে নয়, বরং যে স্বপ্ন সে ঘুমিয়ে দেখে তা নিয়ে।

এই স্বপ্ন বিষয়টার ব্যাখ্যা আজও পূর্ণতা পায়নি। অতি আদিকাল থেকে স্বপ্ন নিয়ে ভাবনার শুরু। স্বপ্ন কি সবাই আমরা জানি, তবে স্বপ্নের যে সংজ্ঞাটি সর্বজন গ্রাহ্য তা হচ্ছে, “ঘুমন্ত অবস্থায় সচেতন অনুভূতির অভিজ্ঞতার নাম স্বপ্ন”।

আর আট-দশটা বিষয়ের মত এই বিষয়েরও গোড়াপত্তন করেন ২৪০০ বছর আগে সেই গ্রিক বিজ্ঞানী এরিসটটল। অশুভ আত্মা, ভুত-প্রেত প্রভৃতির সাথে স্বপ্নের সম্পর্কের পূর্ব প্রচলিত ধারনা বিলুপ্ত করেন তিনি। মজার ব্যাপার হচ্ছে প্রানিরাও স্বপ্ন দেখে। গ্রিক বিজ্ঞানী এরিসটটল তার গভীর পর্যবেক্ষণে প্রাপ্ত ফলটি তার স্লিপ অ্যান্ড ড্রিমস বইয়ে সঙ্কলিত করে বলেন যে, ঘুমন্ত প্রানিদেহের কিছু নড়াচড়ার সাথে স্বপ্নে বিভোর মানুষের নড়াচড়ার প্রচণ্ড মিল রয়েছে।

সাবলিল ভাবে সে কথা গুলো উপস্থাপন করলে দাঁড়ায়, “All creatures that have four limbs and are sanguine (mammals) display signs that they dream while asleep. It seems that not only humans but also dogs, cows, sheep and goats and the entire family of four-legged viviparous animals do dream.”

এবং আরও বলেন যে, “Dreams are not ghosts (phantasmata), since they are closely related to the events of the previous day”.

সেই সময় থেকে আজ পর্যন্ত স্বপ্নকে মৃত ও অশরীরী শক্তির সতর্কবার্তা হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। এই পৃথিবীর ইতিহাসে ইতিহাস বিষয়ক প্রথম বই “হিস্তরিজ” এ লেখক হেরদতাস পারস্যের সম্রাট জেরাক্সেস এর এথেন্স এর বিরুদ্ধে স্বপ্নে সংকেত বার্তার বিষয়টি তুলে ধরেছেন। আর আমরাও যে অনেকেই দৈনন্দিন জীবনে অনেক পরবর্তী ঘটনার দৃশ্য স্বপ্নে দেখি তা অস্বীকার করা যাবে না।

মজার ব্যাপার হচ্ছে স্বপ্নের ব্যাখ্যার বিষয়টাও আজকালের নয়, সে সময় থেকেই যারা অনেক জ্ঞানী ছিলেন তারাও কিছুটা সম্মানীর বিনিময়ে স্বপ্নের ব্যাখ্যা দিতেন। মনস্তত্ত্ব মতে, স্বপ্ন হচ্ছে অবচেতন পৃথিবীর ক্ষুদ্র একটি জানালা এবং এ কারনে মানসিক রোগীদের স্বপ্নগুলো তাদের রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা প্রদানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

আরও একটি উল্লেখ করার মত বিষয় হচ্ছে স্বপ্নের সময়কাল আমাদের প্রাত্তিহিক সময়কালের সাথে মিলে না, অনেকটা আইনস্তাইন এর কাল দীর্ঘায়নের মত ঘটনা ঘটে, যার ফলে মানুষ জাগতিক অবস্থায় স্বপ্নের খুবই অল্প সংখ্যক অংশ মনে রাখতে পারে। এবং অনেক সময়েই সে তার জীবনের অধরা বিষয়গুলোকে স্বপ্নে তার প্রাপ্তি হিসেবে খুঁজে পায়। হিপক্রেটস প্রথমে এই ধারনার প্রবক্তা যে, মস্তিস্কই স্বপ্নের উৎপত্তিস্থল কারণ মনের অবস্থান মস্তিস্কে, হৃদয়ে নয়।

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে রাতের ঘুমে স্বপ্নের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে গ্রিক চিকিৎসক গেলেন রাতের বেলায় শরীরের তাপমাত্রা, হৃদকম্পন হার ও শ্বসন হারের তারতম্য কে দায়ী করেন। মধ্যযুগে ইবনে সিনাও পূর্ববর্তী ধারনাগুলোর সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেছিলেন। আধুনিক যুগে এসে শারীরবিদ্যা ও স্নায়ুমনস্তত্ত বিশারদরা স্বপ্নের ধারনার একটা সম্পূর্ণ রূপ দেয়ার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন।

তবে বর্তমান আধুনিক বিজ্ঞানও স্বপ্নের সময় চোখের দ্রুত নড়নের (বিজ্ঞান মহলে REM নামে প্রচলিত) ধারনাকে বাতিল করে দেয়নি এবং এরিসটটল যে বলছিলেন স্বপ্ন রাতের দ্বিতীয় অর্ধভাগ ও ৮৯% ক্ষেত্রেই পূর্ববর্তী দিনের ঘটনা সংবলিত হয় তা মেনে নেয় যা Statistics of Dreams নামক বইয়ে প্রকাশিত হয়েছে।

বিংশ শতাব্দীতে গেলেনের প্রস্তাবিত তাপমাত্রা, হৃদকম্পনের হার ও শ্বসনের হারের মান স্বপ্নের অবস্থা ও স্বপ্নের বিষয় সম্পর্কে সমুচিত ধারনা দিতে থাকে। বর্তমান আধুনিক বিজ্ঞান বলে যে প্রতিটি ঘটনায় যে নার্ভ ইম্পালস আর একশন পটেনশিয়াল তৈরি হয় তার সবগুলো একসময় ডিকোডেড হয় না, কারণ আমাদের স্নায়ুতন্ত্র প্রথম দিকেই ৯৯% ঘটনা সমূহ অপ্রয়োজনীয় বিবেচনা করে প্রসেস করে না, যে কারনে আমরা স্বপ্নে অনেক অচেনা লোকদের দেখা পাই।

এরা আসলে চলার পথে কোথাও না কোথাও আমাদের সাথে খুবই স্বল্প সময়ের জন্য মিলিত হওয়া ব্যাক্তি। বুঝতে পারলেন নাতো, শুধু একবার ভাবুন যে রিকশা থেকে মাত্র নামলেন সেই রিকশা ড্রাইভারের চেহারা মনে করতে পারছেন কিনা। যদি মনে না করতে পারেন তাহলে সেই হয়ত আপনার পরবর্তী স্বপ্নে দেখা দিবে আপনার আবেদন করা পরবর্তী চাকরির ভাইভা বোর্ডে।

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

স্বপ্ন, ব্যাখ্যা, মস্তিষ্ক, ঘটনা, এরিস্টটল, বিজ্ঞান